মুফতি আমীর হামজাকে গ্রামের বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গেছে প্রশাসন

447

সোমবার বিকেল ৫টার দিকে আমির হামজা তার নিজ বাড়িতে গেলে তাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয় বলে তার পারিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়। তবে কুষ্টিয়া গোয়েন্দা পুলিশের কর্মকর্তারা তাকে আটকের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। তাকে ঢাকার স্পেশাল টিম আটক করেছে কি না সে বিষয়ে তেমন তথ্য পাওয়া যায়নি।

মুফতি আমির হামজার দাদা জান মোহাম্মদ জানান, আমির হামজা আজকেই যশোর থেকে বাড়িতে তার মা-বাবার সাথে দেখা করতে এসেছিল। সে সময় প্রশাসনের পরিচয়ে তাকে নিয়ে গেছে।

মুফতি আমির হামজার স্ত্রী তামান্না সুলতানা জানান, বিকেল ৫টার দিকে আমার শ্বশুর বাড়িতে ছয় থেকে সাতজন সাদা পায়জামা পাঞ্জাবী পরা ব্যক্তি প্রবেশ করে। কোনো কিছু বলার আগেই তাকে হাতে হ্যান্ডক্যাপ পরিয়ে কালো একটি হাইচ গাড়ীতে তোলেন। পরে ওই পোষাকধারীরা গাড়ীতে উঠে তাদের কালো পোষাকটি গায়ে দিয়ে গাড়ী টান দেন। তাদের কাছে রাইফেলসহ অস্ত্র ছিল বলে তিনি জানান। তিনি তার স্বামীকে উদ্ধারে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

মুফতি আমির হামজা কুষ্টিয়া সদর উপজেলার পাটিকাবাড়ী ইউনিয়নের রিয়াজ সর্দারের ছেলে।
ব্যাপারে পাটিকাবাড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সফর আলী জানান, আমি লোকে মুখে শুনেছি কে বা কারা মুফতি আমীর হামজাকে ধরে নিয়ে গেছে। তাছাড়া কিছুই বলতে পারবো না।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি আমিনুল ইসলাম জানান, এব্যাপারে আমরা কিছুই জানি না। একই কথা বলেছেন ইবি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা।
মুফতি আমির হামজা বাংলাদেশ জাতীয় মুফাসসির পরিষদের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। আকিজ গ্রুপের ঢাকার মসজিদের খতিবের দায়িত্বও পালন করছেন তিনি।বিশিষ্ট ওয়াজিন মুফাসসিরে কোরআন মুফতি আমীর হামজাকে সাদা পোষাকে প্রশাসনের পরিচয়ে তার গ্রামের বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গেছে বলে দাবি করেছেন তার পরিবার।

সোমবার বিকেল ৫টার দিকে কুষ্টিয়া জেলার ইসলামী বিশ্বিবিদ্যালয় থানাধিন পাটিকাবাড়ি ইউনিয়নের ডাবুরাভিটার নিজ বাড়ি থেকে তাকে তুলে নেয়া হয়।

চ্যানেল উগান্ডা