ইসরাইলের বিরুদ্ধে যুদ্ধে প্রাণ দিলেন হামাসের আমেরিকান যোদ্ধা বাবা-ছেলে

582

ইসরাইলের বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক যুদ্ধে হামাসের হয়ে লড়াই করে প্রাণ দিয়েছেন আমেরিকান বাবা ও ছেলে। ছেলের নাম ওসামা আল জেবদা। তিনি হামাসের ইজাদ্দিন আল-কাসসাম ব্রিগেডের হয়ে লড়াই করেছেন বলে ফাউন্ডেশন ফর ডিফেন্স অব ডেমোক্র্যাসিস লং ওয়্যার জার্নালে (এফডিডি) প্রতিবেদক জো ট্রুজম্যান এ তথ্য জানিয়েছে।

খবরে বলা হয়, আল-জেবদা ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের ‘টেরোরিস্ট ওয়াচ লিস্টে।’ তার ছেলেকে সোমবার হামাসের কমান্ডার ইয়াহিয়া সিনওয়ারের সাথে এক ভিডিওতে দেখা গেছে। এতে হামাসের কমান্ডারকে শিশুটির হাতে একটি রাইফেল তুলে দিতে দেখা গেছে বলে দাবি করা হয়েছে। তার মৃত্যু ও সেইসাথে তার বাবার মৃত্যুও ফিলিস্তিনি মিডিয়ায় তুলে ধরা হয়। উল্লেখ্য তার বাবা ছিলেন হামাসের সুপরিচিত ইঞ্জিনিয়ার।

তিনি ১২ মে ইসরাইলি বিমান হামলায় নিহত হন বলে বলা হয়েছে।
প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, গাজা উপত্যকায় হামলার সময় ইসরাইলি প্রতিরক্ষা বাহিনী ওসামা বিন জেবদাকে বিশেষভাবে টার্গেট করেছিল।

তার বাবা অধ্যাপক জামাল আল জেবদাও একই দিন নিহত হন। তার বয়স ছিল ৬৪ বছর। তিনি ছিলেন হামাসের রকেট উন্নয়ন বিভাগের প্রধান। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গ্রাজুয়েট হয়েছিলেন। আর তার ওসামা ছিলেন তার বড় ছেলে। তার বয়স ছিল ৩৩ বছর। ওসামাও মার্কিন নাগরিক। তিনি রকেটবিষয়ক প্রকৌশলী ছিলেন।

ফিলিস্তিনি মিডিয়ায় বাবা-ছেলের মৃত্যুর খবর ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। এখন তাদের পরবর্তী প্রজন্মের ছবিও প্রচারিত হচ্ছে। ওসামার স্ত্রীর ছবিও ফিলিস্তিনি মিডিয়ায় প্রকাশিত হচ্ছে। তার একটি বক্তব্যও গুরুত্ব পাচ্ছে। তিনি বলেছেন, ‘আমি দখলদারদের আমার সন্তানদের নামও ভালোভাবে মনে রাখতে বলব। আমি চাইব না, আমার সন্তানেরা তাদের দাদা ও তাদের বাবার চেয়ে কম কিছু হোক। … তাদের বাবা ছিলেন আল-কাসসাম বিগ্রেডের অন্যতম প্রকৌশলী। আর তাদের দাদা জামাল আল-জেবদা হলেন অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ নেতা ও অন্যতম প্রকৌশলী।