হামাসকে হত্যার হুমকি দিয়েছে ইসরায়েল

275

হামাসের শীর্ষ নেতা ইয়াহিয়া সিনওয়ারকে হত্যার হুমকি দিয়েছে ইসরায়েল। দখলদার ইসরায়েলের অর্থমন্ত্রী ও উগ্রপস্থি লিকুদ পার্টির সিনিয়র সদস্য কাৎজ এই হুমকি দেয়।

ইসরায়েলের সঙ্গে ১২ দিনের যুদ্ধে বিজয়ের পর গাজা উপত্যাকার রাস্তায় নেমে সিনওয়ার বিজয় মিছিলে অংশ নেয়ার পর ইসরায়েলি মন্ত্রী এই হুমকি দিলেন।

কাৎজ ধৃষ্ঠতাপূর্ণ ভাষায় বলেন, যদি দুপক্ষের মধ্যকার যুদ্ধবিরতি চুক্তির সামান্যতম লঙ্ঘন হয়, তাহলে ইয়াহিয়া সিনওয়ারের মাথা চাইবে ইসরায়েল।
তিনি বলেন, হামাসের সঙ্গে যে যুদ্ধবিরতির চুক্তি হয়েছে তাতে সিনওয়ারকে ইসরায়েলি হত্যা থেকে দায়মুক্তি দেয়া হয়নি। তিনি ইসরায়েলি সেনা হাদার গোল্ডিন ও অরন শাউলের মরদেহ ফেরত দেয়া এবং আটক সেনা অ্যাভেরা মেনগিস্তু ও হিশাম এ সাঈদের মুক্তি দাবি করেন। ইসরায়েলের এসব সেনাকে হামাস আটকে রেখেছে।

আয়ারল্যান্ড সরকার ইসরাইলের অবৈধ বসতি স্থাপনকে ফিলিস্তিনি ভূমির কার্যত দখল হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। এ নিয়ে আইরিশ পার্লামেন্টে উত্থাপিত প্রস্তাবটি পাস হলে দেশটি থেকে ইসরাইলি রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করা হতে পারে, এমনকি অবরোধও আরোপ করা হতে পারে। ইসরাইলের বিরুদ্ধে কোনো ইউরোপিয়ান দেশের এ ধরনের প্রস্তাব এটাই প্রথম।

আইরিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সিমন কভনি মঙ্গলবার বলেন, বিরোধী সিন ফেইন প্রস্তাবটি উত্থাপন করেছে। আর প্রস্তাবটির প্রতি পুরো আয়ারল্যান্ডের গভীর অনুভূতি রয়েছে।মধ্য-ডানপন্থী ফিন গেল পার্টির সদস্য কোভনি পার্লামেন্টে বলেন, ইসরাইল যে গতিতে, মাত্রায় ও কৌশলে বসতি সম্প্রসারণ করছে, তাতে করে বাস্তবে কী ঘটছে, সে ব্যাপারে আমাদের সৎ থাকতে হবে। এটা আসলে কার্যত দখলদারিত্ব।

তিনি বলেন, বিষয়টি আমরা সহজভাবে নিতে পারছি না। আমরা ইউরোপিয়ান ইউনিয়নভুক্ত প্রথম রাষ্ট্র হিসেবে তা করতে চাচ্ছি। আমরা কিছু করার জন্যই এ পদক্ষেপ গ্রহণ করতে যাচ্ছি।
সিন ফেইনের পররাষ্ট্রবিষয়ক মুখপাত্র জন ব্র্যাডলি পার্লামেন্টে প্রস্তাবটি উত্থাপন করেছেন। তিনি দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর উক্তিকে স্বাগত জানিয়েছেন। আরো কয়েকটি দল প্রস্তাবটি সমর্থন করেছে।

প্রস্তাবটি পাস হলে আইরিশ সরকারকে সে দেশে আয়ারল্যান্ডে নিযুক্ত ইসরাইলি রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করতে হবে। এছাড়া ইসরাইলের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক অবরোধ আরোপ করতে হবে।

চ্যানেল উগান্ডা