টিকটক বাবুদের নারী পাচার চক্রের মূল আস্তানা ভারতে : পুলিশ

388

এক তরুণীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে ভারতের বেঙ্গালুরুতে গ্রেফতার হৃদয় বাবু ওরফে ‘টিকটক বাবু’ আন্তর্জাতিক মানবপাচার চক্রে জড়িত বলে জানিয়েছে পুলিশ।পুলিশ জানায়, ‘টিকটক বাবু’ অপরাধীদের সাথে মিলে নারী পাচারের আন্তর্জাতিক চক্র গড়ে তুলেছিল। এই চক্রটির নেটওয়ার্ক বাংলাদেশ, ভারত ও মধ্যপ্রাচ্যের দুবাইসহ কয়েকটি দেশে বিস্তৃত।ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) তেজগাঁও বিভাগের ডিসি মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ শনিবার বিকেলে তেজগাঁও উপ-কমিশনারের কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান।

ডিসি শহিদুল্লাহ বলেন, বাংলাদেশী এক তরুণীকে যৌন নির্যাতনের ভিডিও ভাইরাল হওয়ার ঘটনায় বাংলাদেশ ও ভারতের পুলিশ দ্রুততার সাথে তদন্তে নেমে আসামি ও ভিকটিমকে শনাক্ত করে। ইতিমধ্যে ভারতে ছয়জনকে গ্রেফতার হয়েছে। তারা সবাই আন্তর্জাতিক নারীপাচার চক্রের সদস্য বলে নিশ্চিত হয়েছে। তাদের পুলিশের এনসিবির মাধ্যমে দেশে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছি।

তিনি আরো বলেন, ‘এই চক্রের সদস্যরা স্কুল-কলেজের বখে যাওয়া ছেলে-মেয়েদের টার্গেট করতো। বিশেষ করে টিকটক গ্রুপে অন্তর্ভুক্ত করে তারা পাচার কাজে সহযোগিতা করছিল। চক্রটির মূল আস্তানা ভারতের ব্যাঙ্গালুরুর আনন্দপুর এলাকায় বলে খবর পাওয়া গেছে।’

শহিদুল্লাহ বলেন, এ ঘটনায় ভারতেও মামলা হয়েছে এবং বাংলাদেশের মামলার প্রধান আসামিও টিকটক বাবু।
পুলিশ জানিয়েছে, ‘টিকটক বাবু’ রাজধানীর মগবাজার এলাকার বাসিন্দা। নির্যাতনের শিকার মেয়েটিও ওই এলাকার। অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশোনা করেছে সে। এরপর পড়াশোনা ছেড়ে বন্ধুদের নিয়ে টিকটক ভিডিও তৈরিতে জড়িয়ে পড়ে বাবু।

প্রতিবেদন ডন ভাই

চ্যানেল উগান্ডা