জিয়ার শাহাদাতবার্ষিকীতে স্লোগানে মুখরিত শেরে বাঙলা নগর

569

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৪০তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে রাজধানীর শেরেবাংলা নগর এলাকা ছিল মিছিল, স্লোগান ও শোডাউনে মুখরিত। এ সময় খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে হাজার হাজার নেতাকর্মীকে ‘আজকের এই দিনে, জিয়া তোমায় মনে পড়ে’, ‘স্বাধীনতার ঘোষক জিয়া, লও লও লও সালাম, ‘স্বাধীনতার অপর নাম, জিয়াউর রহমান’, ‘তারেক-রহমান, রহমান-তারেক’, ‘মুক্তি মুক্তি মুক্তি চাই, দেশনেত্রীর মুক্তি চাই’ এসব স্লোগান দিতে দিতে শেরে বাংলা নগরস্থ জিয়াউর রহমানের মাজারে জড়ো হন।

বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতারা রোববার সকাল সাড়ে ৯টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত মুহুর মুহুর স্লোগানে মুখরিত করে রাখে জিয়াউর রহমানের মাজার ও এর আশপাশের এলাকা।

এই দিন সকাল সাড়ে ৯টার দিকে সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়ার মাজারে আসেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যরা। তারা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মাজারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেনও মরহুমের রূহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া ও মুনাজাত করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু ও সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স।

এ ছাড়াও তাদের সাথে মাজারে আসেন রাজধানীর বিভিন্ন সাংগঠনিক ইউনিটের কয়েক হাজার বিএনপির নেতাকর্মী। এ সময় বিএনপির একাধিক সাংগঠনিক ইউনিটকে আলাদা আলাদা শোডাউন করতে দেখা যায়।বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মাজারে আসে জাতীয়তাবাদী যুবদল। এ সময় যুবদল নেতারাও জিয়াউর রহমানের মাজারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে মরহুমের রূহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া ও মুনাজাত করেন।

এতে নেতৃত্ব দেন যুবদলের সভাপতি সাইফুল ইসলাম নীরব, সিনিয়র সহ-সভাপতি মোত্তাজুল করিম বাদরু, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক নুরুল ইসলাম নয়ন প্রমুখ। পরে যুবদলের বিভিন্ন ইউনিট মরহুম জিয়াউর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণ, দোয়া ও মুনাজাত করেন। এর আগে আলাদা আলাদা শোডাউন দিতে দেখা যায় যুবদল মহানগর উত্তর ও দক্ষিণকে।

দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মাজারে প্রবেশ করে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদ। ছাত্রদল নেতারা জিয়াউর রহমানের রূহের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণ, দোয়া ও মুনাজাত করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদল সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, সিনিয়র সহ-সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল ও সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আমিনুর রহমান আমিনসহ কেন্দ্রীয় সংসদের নেতারা। এর আগে মিছিলসহ আলাদা শোডাউন দিতে দেখা যায় ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল, নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রদল ও ঢাকা মাহানগর উত্তর ছাত্রদলসহ বিভিন্ন ইউনিটকে।

দুপুর ১২টার দিকে ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল ছাত্রদলের হাজার হাজার নেতাকর্মী নিয়ে আগারগাঁও বাণিজ্যমেলা মাঠ থেকে মিছিল নিয়ে ফার্মগেট খামারবাড়ি হয়ে চন্দ্রীমা উদ্যানে প্রবেশ করেন। এ সময় তার সাথে উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, কে এম সাখাওয়াত হোসেন, সাবেক সহ-স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডা: গালিব হাসান, সাবেক সদস্য ফয়সাল আহমেদ সোহেল, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসলাম, ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক রাসেল বাবু, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মুজিব হল ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক সালেহ আদনান, ঢাবি আহ্বায়ক কমিটির সদস্য রিয়াজ আনোয়ার হোসেন, শাহাদাত হোসেন, মেহেদি হাসান রাজা, ঢাকা কলেজ ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক মৃধা জুলহাস, বাঙলা কলেজ ছাত্রদলের সহ-সভাপতি ইব্রাহিম বিপ্লব, ঢাকা মহানগর পূর্ব ছাত্রদলের সহ-সভাপতি কামরুজ্জামান কামরুল, যুগ্ম সম্পাদক আদিত্য চৌধুরী, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সদস্য সচিব প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান রুমি, তেজগাঁও কলেজ ছাত্রদলের সদস্য সচিব প্রার্থী বেলাল হোসেন খান প্রমুখ।

নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মশিউর রহমান রনির নেতৃত্বে কয়েক শতাধিক ছাত্রদলে নেতাকর্মী প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মাজারে আসেন। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন জেলা ছাত্রদল যুগ্ম সম্পাদক, মশিউর রহমান শান্ত, জেলা ছাত্রদল নেতা ,শফিকুল ইসলাম শফিক, মোমেন খাঁন, ফজলুল করিম, শাজাহান, ফতুল্লা থানা ছাত্রদলের আহ্বায়ক দোলন, আড়াইহাজার থানা ছাত্রদলের আহ্বায়ক জোবায়ের জিকু, বন্দর উপজেলা ছাত্রদলের সদস্য সচিব সাকিব রাইয়ান, সোনারগাঁ থানা ছাত্রদলের আহ্বায়ক জাকারিয়া ভূঁইয়া, যুগ্ম আহ্বায়ক শাহাজালাল ও সিফাত আদনান প্রমুখ।

দুপুর দেড়টায় শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মাজারে আসে জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দল কেন্দ্রীয় সংসদ ও বিভিন্ন ইউনিট । এ সময় উপস্থিত ছিলেন ভারপ্রাপ্ত সহ-সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির ভূইয়া জুয়েল, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক সাইফুল ইসলাম ফিরোজ প্রমুখ।জিয়ার শাহাদাতবার্ষিকীতে স্লোগানে মুখরিত শেরে বাঙলা নগর
বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৪০তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে রাজধানীর শেরেবাংলা নগর এলাকা ছিল মিছিল, স্লোগান ও শোডাউনে মুখরিত। এ সময় খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে হাজার হাজার নেতাকর্মীকে ‘আজকের এই দিনে, জিয়া তোমায় মনে পড়ে’, ‘স্বাধীনতার ঘোষক জিয়া, লও লও লও সালাম, ‘স্বাধীনতার অপর নাম, জিয়াউর রহমান’, ‘তারেক-রহমান, রহমান-তারেক’, ‘মুক্তি মুক্তি মুক্তি চাই, দেশনেত্রীর মুক্তি চাই’ এসব স্লোগান দিতে দিতে শেরে বাংলা নগরস্থ জিয়াউর রহমানের মাজারে জড়ো হন।

বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতারা রোববার সকাল সাড়ে ৯টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত মুহুর মুহুর স্লোগানে মুখরিত করে রাখে জিয়াউর রহমানের মাজার ও এর আশপাশের এলাকা।