মারা গেছেন এমপি হারুন অত্যন্ত সৎ মানুষ ছিলেন

2368

সাবেক আইনমন্ত্রী আব্দুল মতিন খসরু অত্যন্ত সৎজন মানুষ ছিলেন মন্তব্য করে বিএনপির সংসদ সদস্য হারুন উর রশিদ হারুন এমপি বলেছেন, একাদশ সংসদের মাননীয় সদস্য আব্দুল মতিন খসরু যখন আইনমন্ত্রী আমিও তখন এই সংসদের সদস্য। সত্যিকার অর্থে এবার সংসদে যোগদানের পর সংসদের মসজিদে তার সাথে জামাতে নামাজ আদায় করতাম।

মসজিদে নামাজ পড়ে হাঁটতে হাঁটতে আসতাম। তখন আমাকে বলতেন, ‘আপনি বিরোধী দলের সদস্য হিসেবে যোগদান করেছেন, ভালো কাজ করেছেন। সংসদে বাস্তব কথাগুলো সাহস করে বলবেন। কারণ সরকারি দলের সদস্য হিসেবে আমাদের অনেক সীমাবদ্ধতা আছে।’ তিনি অত্যন্ত সৎজন মানুষ এবং আমাকে অত্যন্ত স্নেহ করতেন। সুপ্রিমকোর্টে গেলে সুপ্রিমকোর্টের বারান্দায় দেখা হলে বলতেন, হারুন সাহেব চেম্বারে আসবেন, চা খেয়ে যাবেন।

বুধবার জাতীয় সংসদে এক শোক প্রস্তাবে অংশ নিয়ে এমপি হারুন এসব কথা বলেন।
এমপি হারুন বলেন, আমরা একটি কঠিন সময়ে জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশন অংশগ্রহণ করতে পেরেছি এজন্য আল্লাহ’র দরবারে শুকরিয়া আদায় করছি, আলহামদুলিল্লাহ। মাননীয় স্পিকার আল্লাহ পাক পবিত্র কুরআনে বলেছেন, কুল্লু নাফসিন জাইকাতুল মাউত। অর্থাৎ প্রত্যেক প্রাণীর মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবে। আমাদের মৃত্যুর তারিখ ও সময় আল্লাহপাক সম্পূর্ণ নির্ধারণ করে রেখেছেন নিজের কাছেই। আমরা কেউ তা বলতে পারবো না। তারই অংশ হিসেবে আব্দুল মতিন খসরু সাহেব আমাদের মধ্য থেকে চলে গেছেন।

তিনি বলেন, ক’দিন আগে আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দফতরে গিয়েছিলাম। সেখানেও তিনি ছিলেন। আজকে তিনি নেই। এটা সত্যিই বেদনাদায়ক। আমি তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি।
বিএনপির এই সংসদ সদস্য বলেন, মাননীয় স্পিকার, তিনি আজকে আমাদের ত্যাগ করে চলে গেছেন। আমরা এখন চাইলেও তার সাথে কথা বলতে পারবো না। তিনি কেমন আছেন, কীভাবে আছেন। কিছু বলতে পারবো না। এজন্য আল্লাহ পাক আমাদের পবিত্র কুরআনের সূরা ‘আল মূলক’-এর দুই নম্বর আয়াতে বলেছেন, “আল্লাযী খলাক্বল্ মাউতা ওয়াল হাইয়া-তা লিইয়াব্লুওয়াকুম্ আইয়্যুকুম্ আহ্সানু ‘আমালা-; ওয়া হুওয়াল্ ‘আযীযুল্ গফূরু। মাননীয় স্পিকার, এর অর্থ হচ্ছে আল্লাহ মানুষকে জীবন দিয়ে সৃষ্টি করেছেন এবং আমরা কে উত্তম সেটা কর্মের মাধ্যমে নির্ধারণ করার জন্যই দুনিয়াতে পাঠিয়েছেন। আল্লাহ অত্যন্ত ক্ষমাময় ও দয়াশীল। মাননীয় স্পিকার, আমার জানা মতে অতীতে কখনো এক বছরে এতগুলো সংসদ সদস্য প্রাণ হারায়নি। সত্যিকার অর্থেই এগুলো আল্লাহর পক্ষ থেকে আমাদের জন্য সতর্কবার্তা। আমাদের জীবনেও যেকোনো মুহূর্তে আসবে। আমরা রাষ্ট্র পরিচালনার একটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে রয়েছি। আমরা রাষ্ট্রের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি। তাই আমরা সেই দায়িত্ববোধ থেকে যদি আমরা আমাদের কর্তব্যের ব্যাপারে সচেতন হই, যে আমাদের মৃত্যুর পর আল্লাহ আমাদের জবাবদিহিতা করবেন। আর সেটা মনে রাখতে পারলেই মনে করবো আমরা সফল।

সুত্র- চ্যানেল উগান্ডা