আ,বু ত্ব-হার আ’ত্মগোপন করা সেই বাড়ি নিয়ে তো’লপাড়

337

ধ,র্মীয় বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান তিন সঙ্গী নিয়ে আত্মগোপন করেছিলেন গাইবান্ধার ত্রিমোহনীর একটি বাড়িতে। বা,ড়িটি ত্ব-হার বন্ধু সিয়ামের হলেও তখন তিনি বাড়িতে ছিলেন না বলে উ,দ্ধারপরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে জানায় রংপুর গোয়েন্দা পুলিশ। তবে সে সময় সিয়ামের মা বাসায় ছিলেন।

গত,কাল শুক্রবার আবু ত্ব-হা রংপুর থেকে উদ্ধার হওয়ার পর আলোচনায় আসে গাইবান্ধার সেই বাড়ি। এলাকায় ওই বাড়ি নিয়ে চলছে জল্পনা-কল্পনা। সকাল থেকেই ভিড় দেখা যায় বাড়িতে। স্থা,নীয় প্রশাসন ও রাজনৈতিক ব্যক্তিরা ওই বাড়ির সঙ্গে ত্ব-হার প্রকৃত সংশ্লিষ্টতা খুঁজছে। একই সঙ্গে ত্ব-হার আত্মগোপনে গাইবান্ধার যোগসূত্র খুঁজছে তারা।

আ’জ শনিবার ওই বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় স্থানীয় সাংবাদিকসহ না’না শ্রেণি পেশার মানুষের ভিড়। ওই বাড়িতে গিয়ে পাওয়া যায় ত্ব-হার বন্ধু সি,য়ামের মা নিশাত নাহারকে। তিনি ওই বাড়িতে আবু ত্ব-হা তার সঙ্গীদের নিয়ে ছিলেন বলে স্বীকার করেন।নিশাত নাহার জানান, কয়েকবার তার ছেলের বন্ধুত্বের সূত্র ধরে ত্ব-হা তার বাড়িতে আসে। এ,লাকার মসজিদে খুতবা পড়ান। মাহফিল করতেন। কি,ন্তু এবার সাতদিন তার বাড়িতে ত্ব-হাসহ বাকি তিনজনই নিঃশব্দে কাটান।

তি’নি আরো জানান, ত্ব-হা তাকে জানায়, কারা যেন তার ক্ষতি করার জন্য অনুসরণ করছে। তা’কে তিনি ভীত-সন্ত্রস্ত দেখেছেন। তারা এবার বাড়ির বাইরে যাননি। তা,র সঙ্গীদের মধ্যে ছিল আব্দুল মুকিত, মো. ফিরোজ ও গাড়িচালক আমির উদ্দিন ফয়েজ। তিনি সঙ্গীদের নিয়ে ফোন বন্ধ করে ঘরেই কাটান।

এ’লাকাবাসী জানায়, গাইবান্ধার ত্রি-মোহনীর মৃত শরীফ নেওয়াজ খানের বাড়িতে এর আগেও ত্ব-হা অনেকবার এসেছেন। এ,লাকায় ধর্মীয় কাজ কর্মে যোগ দেন তিনি। এ,বার তাকে বাইরে দেখা যায়নি। তারা মিডিয়ার মাধ্যমে ঘটনাটি জেনেছেন। তাদের ভাষায়, পুরো ব্যাপারটি ‘রহস্যজনক’।

গত ১০ জুন রাত থেকে নি,খোঁজ ছিলেন আবু ত্ব-হা, তার দুই সঙ্গী আব্দুল মুহিত, মোহাম্মদ ফিরোজ ও গাড়িচালক আমির উদ্দিন। সে,দিন বিকেল ৪টার দিকে ওই তি,নজনসহ আবু ত্ব-হা রংপুর থেকে ভাড়া করা একটি গাড়িতে ঢাকার পথে রওনা দেন বলে দাবি করেন তার পরিবার।