নামের কারণে যাদের ধর্ম নিয়ে কনফিউশন আপনিও জেনে নিন

478

শেক্সপিয়র বলেছিলেন “নামে কি আসে যায় ?” তবে নামই হচ্ছে মানুষের পরিচয়ের প্ৰথম এবং প্রদান সোপান। তারকাদের অভিনয় জগতের পাশাপাশি তাদের ব্যক্তিগত জীবন নিয়েও সাধারণ মানুষদের কৌতূহল প্রবল। তারা কখন কোথায় যায়, কার সাথে সম্পর্কে জড়ায় ইত্যাদি বিষয়ে জানতে দর্শকদের আগ্রহের কমতি থাকে না। তেমনি তারা বাস্তব জীবনে কোন ধর্মের অনুসারী এসব ব্যাপারেও সাধারণ মানুষের কৌতূহল থাকে। মূলত তাদের নামের পাশের টাইটেল দেখে আমরা তাদের ধর্ম বা বংশপদবী সম্পর্কে ধারণা পাই। কিন্তু এমন অনেক তারকা আছেন যাদের নামের কারণে তাদের ধর্ম নিয়ে মানুষের মধ্যে ভুল ধারণা বা কনফিউশনের সৃষ্টি হয়। আজ এমন কয়েকজন সেলেব্রিটিদের নিয়েই আলোচনা করবো।১. দিলীপ কুমার:

জীবন্ত কিংবদন্তি এই বলিউড অভিনেতার আসল নাম হচ্ছে মুহাম্মদ ইউসুফ খান। মূলত তৎকালীন মুসলিম সমাজ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের ব্যাপারে খুব রক্ষণশীল ছিল বলে উপমহাদেশের মুসলমান অভিনেতাদের হিন্দুয়ানী মঞ্চনাম বা ছদ্মনাম নিয়ে সিনেমায় কাজ করতে হতো। আর একবার তারা সেই নামে জনপ্রিয়তা বা পরিচিতি পেয়ে গেলে তাদের আসল নাম চাপা পড়ে যায়। তেমনি মধুবালা নামে যাকে চেনেন তার আসল নাম মমতাজ জাহান দেহলভী; মেহজাবিন বানু হয়ে গেছেন মীনা কুমারী। এমনকি আমাদের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামও হিন্দুয়ানী নাম নিয়ে সিনেমায় অভিনয় ও সংগীত রচনা করেছেন।২. রাজলক্ষী জুটি:

নায়করাজ আব্দুর রাজ্জাক ও তার স্ত্রী লক্ষী: এই দুজনের জুটিকে বলা হয় “রাজলক্ষী”। অনেকেই নায়করাজ সাহেবের স্ত্রীকে নামের কারণে হিন্দু মনে করেন। কিন্তু তার আসল নাম হচ্ছে “খাইরুন্নেসা”। আসলে তার বাবা তাকে আদর করে “লক্ষী” নামে ডাকতেন বলে তিনি সেই নামেই অধিক পরিচিত হয়ে উঠেন।৩. প্ৰবীর মিত্র ও সুব্রত:

নামের কারণে এদের হিন্দু ধর্মালম্বী মনে হতেই পারে এমনকি উনারা প্রথম জীবনে হিন্দু ধর্মাবলম্বীও ছিলেন। পরবর্তীতে তারা দুজনেই দুজন মুসলিম নারীকে বিয়ের আগে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছিলেন। তবে পর্দায় তাদের সুপরিচিত নামগুলো অপরিবর্তিতই রয়ে গেছে। যেমন অভিনেতা সুব্রত চিত্রনায়িকা দোয়েলকে ভালোবেসে বিয়ে করার সময় ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। তাদের সন্তান হচ্ছেন একসময়ের জনপ্রিয় শিশুশিল্পী দীঘি।৪. কমল হাসান:

কিংবদন্তি এই ভারতীয় অভিনেতার নাম শুনে তাকে মুসলিম বলে মনে হতেই পারে। তবে তিনি আদৌ মুসলমান নন। তার জন্মের পর নাম রাখা হয় পার্থসারথি। পরে তার বাবা নাম পরিবর্তন করে তিনিসহ তার সকল ভাইয়ের নামের সাথে হাসান উপাধি যুক্ত করে দেন। এর দুইটা কারণ আছে। এক, এর মাধ্যমে কমল হাসানের বাবা তার দীর্ঘদিনের সহযোদ্ধা ইয়াকুব হাসানকে সম্মান জানিয়েছেন। আর দুই, “হাসান” শব্দের সংস্কৃত ভাষার দিক থেকে অর্থ “হাসি”। বাস্তব জীবনে কমল হাসান একজন স্বঘোষিত নাস্তিক।৫. চঞ্চল চৌধুরী ও বাপ্পী চৌধুরী:

“চৌধুরী” এমন একটি বংশ পদবী যেটা যেকোন ধর্মের লোকই ব্যবহার করেন। আবার চঞ্চল ও বাপ্পী; এই দুটো নামই প্রায় সব ধর্মে কমন। তাই অনেকেই এদের দুজনকে মুসলমান মনে করেন। মূলত তাদের আসল নাম যথাক্রমে সুচিন্ত চৌধুরী চঞ্চল ও বাপ্পী কুমার সাহা।৬. সালমা হায়েক:

তুমুল জনপ্রিয় এই মেক্সিকান-আমেরিকান অভিনেত্রী সম্পর্কে যারা জানেন না, তারা মূলত নাম শুনলে মনে করবেন তিনি মুসলিম। কিন্তু আসলে তিনি খ্রিস্ট ধর্মালম্বী। তার নামকরণের সময় তার আরব বংশোদ্ভূত বাবা এমন একটি আরবি শব্দ নির্বাচন করতে চান, যার অর্থ হবে “শান্তি”। আরবী সালমা শব্দের অর্থ শান্তি।৭. মামুট্টি:

যারা সাউথ ইন্ডিয়ান বা বিশেষ করে মালায়লাম সিনেমার নিয়মিত দর্শক, তাদের শক্তিমান অভিনেতা মামুট্টিকে না চেনার কোন কারন নেই। ইনি কিন্তু হিন্দু বা খ্রিস্টান নন। উনার আসল নাম মোহাম্মাদ কুট্টি ইসমাইল পানিপারামবিল। জনপ্রিয় মালায়লাম চিত্রনায়ক দুলকার সালমান তার ছেলে।৮. সুমিতা দেবী:

বাংলাদেশের সোনালী যুগের সেরা অভিনেত্রী সুমিতা দেবীর জন্মগত নাম হেনা ভট্টাচার্য। পরিচালক জহির রায়হানকে বিয়ে করে ধর্মান্তরিত হয়ে নিলুফার বেগম নাম ধারণ করলেও চলচ্চিত্র জগৎ এই নামে কাউকে চেনে না। তারা চিনে সুমিতা দেবী নামেই।৯. শর্মিলা ঠাকুর ও অমৃতা সিং:

উনারা দুজনই নিজ নিজ সময়ের বলিউডের অভিনেত্রী এবং পতৌদি নবাব পরিবারের বউ। শর্মিলা ঠাকুর মনসুর আলী পতৌদিকে বিয়ে করার সময় আয়েশা নাম ধারণ করে মুসলমান হন। আবার তাদের ছেলে সাইফ আলী খানকে বিয়ে করার সময় মুসলমান হন অমৃতা সিং। যিনি চিত্রনায়িকা সারা আলী খানের মা।১০. ধর্মেন্দ্র ও হেমা মালিনী:

উনাদের নাম শুনে চমকে গেলেন ? ধর্মেন্দ্র এর প্রথম স্ত্রী ছিলেন প্রকাশ কৌর। তারপরও তিনি হেমা মালিনীর প্রেমে পড়েন। কিন্তু তাদের বিয়ে হওয়া সম্ভব ছিল না।

কারণ প্রকাশ কৌর ধর্মেন্দ্র কে তালাক দিতে রাজি ছিলেন না। আবার হিন্দু শাস্ত্রমতে প্রথম স্ত্রী জীবিত থাকতে স্বামী দ্বিতীয় বিয়ে করতে পারবে না। তাই বিয়ের জন্য তাদের সামনে একটি পথই খোলা ছিল। আরও সেটি হল ধর্মান্তরিত হওয়া। করলেন ও তাই। দুজনই ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। বিয়ের পর হেমার নাম বদলে রাখা হয় আয়েশা খান আর ধর্মেন্দ্রর নাম রাখা হয় দেলওয়ার খান। কিন্তু বাস্তবে তারা ইসলাম ধর্মের রীতিনীতি পালন করেন না বলেই জনশ্রুতি আছে।১১. ক্যাটরিনা কাইফ:

বলিউডের লাস্যময়ী এই অভিনেত্রীর নাম ও ধর্ম নিয়ে অনেকেরই কনফিউশন আছে। এর কারণ হলো তার নামের প্রথম অংশ “ক্যাটরিনা” শুনে খ্রিস্টান মনে হলেও, তার পদবী “কাইফ” হচ্ছে মুসলিম পদবী। এর কারণ ক্যাটরিনার মা সুজানা খ্রিস্টান হলেও, তার বাবা মোহাম্মদ কাইফ ছিলেন কাশ্মীর বংশোদ্ভূত একজন ব্রিটিশ ব্যবসায়ী। ছোটবেলায় তার মা বাবার তালাক হয়ে যায়। আবার বিভিন্ন সিনেমা মুক্তির আগে তাকে মাজার, মন্দির, গুরুদুয়ার, গির্জাতে যেতে দেখা গেছে। এর জন্য তার প্রকৃত ধর্ম নিয়ে সাধারণ দর্শকদের কনফিউশন আরো বেড়ে যায়। তবে এই ব্যাপারে ক্যাটরিনার বক্তব্য হলো, “তার ঈশ্বরের প্রতি অগাধ বিশ্বাস রয়েছে, এবং তিনি সব ধর্মই মেনে চলেন।