একের পর এক ক্ষমতাসীনদের গোমর ফাঁস করেই যাচ্ছে কাদের মির্জা

1027

ক্ষমতায় আসার পর থেকে গত ১২ বছরে শেখ হাসিনার সরকার যেমন গুম খুন, ধর্ষণ, লুটপাটসহ বিভিন্ন নৈরাজ্যে রেকর্ড গড়েছে তেমনি নিশি নির্বাচন থেকে ‍শুরু করে ভোট ডাকাতি করে ক্ষমতায় থাকার কৌশলও শিখিয়ে দিয়েছেন। এসব নতুন কিছু নয়। তবে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে দাবি করা হয় তারা অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন, মানুষের ভোটের অধিকার নিশ্চিতকরণ ও মজবুত গণতন্ত্রে গড়ে তুলেছে। কিন্তু এবার সব মুখোশ খুলে দিয়েছেন তারই দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই ও নোয়াখালীর আ.লীগ নেতা আব্দুল কাদের মির্জা।

গত এক সপ্তাহ ধরে প্রতিদিনই সরকারের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে যাচ্ছেন তিনি।

জানা গেছে, কিছু দিন আগে তিনি চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে গিয়েছিলেন। তার পেটে দুইটি টিউমার হয়েছিল। তখনই তিনি শপথ করেছিলেন-সুস্থ হয়ে দেশে ফিরতে পারলে তিনি সত্য কথা বলবেন। দেশে এসে তিনি তার প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেছেন। বলেছেন সত্য কথা। এখনো বলে যাচ্ছেন।

দেশে ফিরে এক সভায় কাদের মির্জা বলেছিলেন-সুষ্ঠু ভোট হলে দুয়েকটা আসন ছাড়া আওয়ামী লীগের অন্যান্য এমপিরা বিজয়ী হওয়া তো দূরের কথা-পালিয়ে যাওয়ার দরজা পেত না।

আরেক সভায় তিনি বলেছেন-দেশের মানুষ গণতান্ত্রিক অধিকার থেকে বঞ্চিত, মানুষ তাদের ভোটের অধিকার থেকে বঞ্চিত। দুর্নীতি, চাদাবাজি ও টেন্ডারবাজি শেখ হাসিনা বন্ধ করতে পারেননি।

তার এসব বক্তব্য গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশের পরই এনিয়ে সারাদেশে তোলপাড় পড়ে যায়। দেশের রাজনৈতিক অঙ্গন থেকে শুরু করে বিভিন্ন মহলে এখন বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ ওবায়দুর কাদেরের ছোট ভাই আব্দুল কাদেরের বক্তব্য নিয়ে আলোচনা সমালোচনা করছেন।

বিগত কয়েক বছরে দেশে অনুষ্ঠিত নির্বাচন নিয়ে মানুষের অভিযোগের শেষ নেই। সংসদ নির্বাচন থেকে শুরু করে প্রতিটি নির্বাচনেই ভোট ডাকাতি হচ্ছে। এমনকি ফজরের আগেই ব্যালটে সিল মারার ঘটনাও ঘটেছে গত ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে। চারদিক থেকে ভোট ডাকাতির অভিযোগ উঠলেও শেখ হাসিনাসহ তার দলের নেতারা সুষ্ঠু ভোটের দাবি করে করে যাচ্ছে। তবে, এবার তাদের সেই চাপাবাজির পথ বন্ধ করে দিয়েছেন ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই আব্দুল কাদের মির্জা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দলের ভেতর থেকে নির্বাচন ও গণতন্ত্র নিয়ে এমন বিস্ফোরণের ঘটনায় শেখ হাসিনাসহ দলটির হাইকমান্ড কিংকর্তব্য বিমূঢ় হযে পড়েছেন। আব্দুল কাদের মির্জার এসব বক্তব্যের কারণে সরকার বড় ধরণের সংকটে পড়তে পারে বলেও আশঙ্কা করছেন তারা। বিভিন্নভাবে তারা কাদের মির্জার মুখ বন্ধ করার চেষ্টা করছেন।

এদিকে, ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই আব্দুল কাদের মির্জার বক্তব্য নিয়ে রাজনীতিক বিশ্লেষক ও সচেতন মহল বলছেন-সত্যকে বেশি দিন চাপা দিয়ে রাখা যায় না। সত্য একদিন প্রকাশ হবেই। আব্দুল কাদের মির্জা সেই সত্যকেই প্রকাশ করেছেন মাত্র। গণতন্ত্রের নামে চাপিয়ে দেয়া স্বৈরতন্ত্র ও নির্বাচনের নামে নিশিরাতের ভোট ডাকাতির সত্যটাই তিনি প্রকাশ করেছেন। এর মাধ্যমে তিনি শেখ হাসিনার মুখোশটা খুলে দিয়েছেন।