আজ বিশ্ব নারী দিবসে অনেক নারীকেই এভাবে ডান হাত তুলে Choose To Challenge সাইন দেখাতে দেখছি।

210

এই নারীকে দেখুন। টিন এজার বয়সে বিয়ের চ্যলেঞ্জ গ্রহণ করেছেন, ১৯৬৫ সালে মাত্র কুড়ি বছর বয়সে বড় ছেলেকে বুকে আঁকড়ে ধরে বিধবা হবার চ্যালেঞ্জ নিয়ে স্বামীকে পাক-ভারত যুদ্ধে যেতে দিয়েছেন। ১৯৭১ সালে উনার স্বামী যখন পাকিস্তান সেনাবাহিনীতে তাঁর কমান্ডিং অফিসারকে হত্যার পর ‘উই রিভোল্ট’ বলে স্বাধীনতার ঘোষনা দিয়ে যুদ্ধে গেছেন, তখনই উনি দুই সন্তানসহ বন্দি হবার চ্যালেঞ্জ নিয়েছেন, দেশের স্বাধীনতার জন্য। ১৯৮১ সালে উনার স্বামীকে হত্যা করা হয়। তারপর দেশে যখন ১৯৮২ সালে স্বৈরাচারী এরশাদের সরকার চেপে বসলো, তখন তিনি গৃহবধু থেকে রাজনীতিবিদ হয়ে এরশাদকে হঠানোর চ্যালেঞ্জ নিয়ে আপোষহীন লড়াই করে ১৯৯১ সালে স্বৈরাচারের পতন ঘটান এবং ১৯৯১ সালে দেশের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী হন। উনিই সর্বপ্রথম নারীদের অবৈতনিক শিক্ষার ব্যবস্থা করেন। বাংলাদেশের নারীর ক্ষমতায়ন নিয়ে যতটুকু কাজ হয়েছে তার সিংহভাগই উনি চ্যালেঞ্জ নিয়ে করেছেন।

আজ আপনারা উনাকে অনুকরণ করে উনার মত হাত তুলে Choose To Challenge সাইন দেখাচ্ছেন। কিন্তু ৭৬ বছর বয়ষ্ক এই নারীকে যে মিথ্যা মামলায় প্রহসনের রায়ে কেবলমাত্র রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার জন্য চিকিৎসা সুবিধাটুকু না দিয়ে আটকে রাখা হয়েছে, তার জন্য কোন প্রতিবাদ করেছেন?

কেবল দেখাদেখি হাত তুলে Choose To Challenge সাইন দেখালেই হয় না, চ্যালেঞ্জ গ্রহনও করতে হয়।

#ChooseToChallenge #FreeKhaleda