শিক্ষিকাকে ধর্ষণের পর পা ধরে ক্ষমা চেয়ে আবার করতেন-তাজুল

121

শিক্ষিকাকে ধর্ষণের পর হাত-পা ধরে ক্ষমা চেয়ে নিয়মিত ধর্ষণ করে শিক্ষক নোয়াখালীতে এক স্কুলের সহকারী শিক্ষিকার দায়ের করা ধর্ষণ মামলার আসামি প্রধান শিক্ষক জামিনে মুক্তি পেয়ে বাদীনিকে মামলা প্রত্যাহারের জন্য প্রাণনাশের হুমকি-দমকি দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।এ ব্যাপারে বেগমগঞ্জ মডেল থানায় নির্যাতিতা বৃহস্পতিবার একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। জানা যায়, বেগমগঞ্জ উপজেলার কিসমত আবদুল্লাহপুর গ্রামের মো. রুস্তম আলীর ছেলে ও উপজেলার জমিদার হাট রেডিয়ান্ট রেসিডেন্সিয়াল স্কুলের প্রধান শিক্ষক আবুল হাসান।তিনি ২ সন্তানের জনক। এ প্রধান শিক্ষক একই স্কুলের সহকারী শিক্ষিকা রমিজা খাতুনকে স্কুলের ৪ তলায় তার বাসায় কথা আছে বলে ডেকে নেয়। রমিজা সহজ সরল মনে তার বাসায় যায়।সেখানে যাওয়ার পর সেখানে প্রধান শিক্ষক আবুল হাসান তাকে ধর্ষণ করেন। একপর্যায়ে রমিজা বিষয়টি অন্য শিক্ষকদের কাছে প্রকাশ করবে বললে শিক্ষক আবুল হাসান তার হাত-পা ধরে তাকে বিয়ে করার অশ্বাস দেন। একইভাবে তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করতে থাকে। এক পর্যায়ে রমিজা অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে